প্রাণের উচ্ছ্বাসে লস এঞ্জেলেসে গ্রন্থ উৎসব অনুষ্ঠিত

November 13, 2014 9:53 PMViews: 60

তপন দেবনাথঃ প্রাণের উচ্ছ্বাসে আনন্দঘন পরিবেশে লস এঞ্জেলেসে প্রথমবারের মতো গ্রন্থ উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত ৮ নভেম্বর দিনব্যাপী বাংলাদেশি অধ্যুষিত শ্যাটো রিক্রেয়েশন সেন্টারে এই প্রাণের মেলা, গ্রন্থ উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। আহমেদ বশীরের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিদ্যাপ্রকাশের অধিকারী মুক্তিযোদ্ধা মজিবর রহমান খোকা। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ড. মাহবুব হাসান ও বিশিষ্ঠ সমাজ সেবক ফার্মাসিস্ট মোয়াজ্জেম হোসেন চৌধুরী। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সাজেদ চৌধুরী ম্যাকলীন। বিদ্যাপ্রকাশ, ঢাকা ও স্থানীয় রিডার্স এন্ড রাইটার্স এসোসিয়েশন যৌথভাবে এই গ্রন্থ উৎসবের আয়োজন করে।

কাজী মনোয়ার হোসেন ভাইয়ার পরিচালনায় শিশু-কিশোরদের বাংলা বইপাঠ ও কবিতা আবৃত্তি প্রতিযোগীতার মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠানের শুরু হয়। বইপাঠ (৬-১০) প্রতিযোগীতায় প্রথম হয়েছে প্রভাতী দেবী, দ্বিতীয় আলিশা কায়ানী, তৃতীয় রিফাত রহমান। আবৃত্তি (৬-১০) প্রতিযোগীতায় প্রথম হয়েছে আলিশা কায়ানী, দ্বিতীয় প্রভাতী দেবী, তৃতীয় সামান্ত হোসেন। আবৃত্তি (১১-১৪) প্রতিযোগীতায় প্রথম হয়েছে শেখ জিব্রান,যৌথভাবে দ্বিতীয হয়েছে মিশা আলম ঋদি ও ফাতিম আনোয়ার এবং তৃতীয় হয়েছে যৌথভাবে তাবাসসুম আলম ও সামিহা রহমান। বিজয়ী শিশু-কিশোরদের মধ্যে বিশেষ পুরস্কার বিতরণ করেন গ্রন্থ উৎসবের গ্রান্ড স্পন্সর মোয়াজ্জেম হোসেন চৌধুরী। সভাপতিত্ব করেন কনভেনর মজিবর রহমান খোকা। শিশু-কিশোরদের সমস্ত অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন বিশিষ্ঠ শিশু সংগঠক কাজী মনোয়ার হোসেন ভাইয়া।

IMG_13112014_10_LA_GRANTHA_UTHSHOB

বাংলা সাহিত্য এবং শিক্ষকতায় অসামান্য অবদান রাখার জন্য ড. কাজী নাসির উদ্দীনকে সর্Ÿোচ্চ সম্মননা প্রদান করা হয়। বাংলা কথা সাহিত্যে বিশেষ অবদান রাখার জন্য ড. মাহবুব হাসান এবং লস এঞ্জেলেসে বাংলাদেশের কৃষ্টি ও সংস্কৃতি প্রসারে পৃষ্টপোষকতা করার জন্য মোয়াজ্জেম হোসেন চৌধুরীকে সম্মাননা প্রদান করা হয়। শিশু-কিশোরদের বাংলা ভাষা চর্চা ও বাংলা সংস্কৃতি বিকাশে অবদান রাখার জন্য তিনজনকে বিশেষ সম্মননা পদক প্রদান করা হয়। এরা হলেন- জাহিদ হোসেন পিন্টু, শামীম আরা ও কাজী মনোয়ার হোসেন। পাঠক অভিব্যক্তি অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহন করেন ফিরোজ আলম, আমজাদ হোসেন ও জাহাঙ্গীর বিশ্বাস। সভাপতিত্ব করেন মজিবর রহমান খোকা। প্রথম সেমিনারে ড. মাহবুব হাসান এর লেখা প্রবন্ধ “বাংলাদেশের তুলনামূলক কথাসাহিত্য” নিয়ে আলোচনা করেন সাজেদ চৌধুরী ম্যাকলীন, জেসমিন খান, কাজী মশহুরুল হুদা ও ফয়সাল আহমেদ তুহিন। দ্বিতীয় সেমিনারে কাজী রহমানের প্রবন্ধ “অভিবাস জীবনে সাহিত্যচর্চা” নিয়ে আলোকপাত করেন আশরাফ আহমেদ মিলন, সাইফুল আলম চৌধুরী, কাজী রহমান ও ড. ইউনূস রাহী।

IMG_13112014_11_LA_GRANTHA_UTHSHOB

অনুষ্ঠানে স্বরচিত কবিতা আবৃত্তি করেন ইউনুস জামান, সাজেদ চৌধুরী ম্যাকলীন, কাজী মশহুরুল হুদা, মিঠুন চৌধুরী, সাইফুল আলম চৌধুরী ও ফারাহ্ সাঈদ। কবিতা আবৃত্তি করেন এজাজ আহমেদ, শিলা মোস্তফা, আহমেদ বশীর। অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে প্রবাসী শিল্পীরা গান পরিবেশন করে দর্শক-শ্রোতাদের আনন্দ দেয়। এ পর্বে অংশ গ্রহন করেন লাবণী, মিঠুন চৌধুরী ও মো: আবু হানিফা। অনুষ্ঠান পরিচালনা ও উপস্থাপনা করেন গ্রন্থ উৎসব কমিটির চীফ কো-অডিনেটর আশরাফ আহমেদ মিলন, সাজিয়া হক মিমি, রওশন আরা, ফারাহ্ সাঈদ ও মিঠুন চৌধুরী। এ উপলক্ষ্যে সিঁড়ি নামে একটি ম্যাগাজিন প্রকাশ করা হয়েছে। সম্পাদনা করেছেন ফারাহ্ সাঈদ ও গ্রাফিক ডিজাইন করেছেন জাহান হাসান। মঞ্চ সজ্জা করেছেন বিশিষ্ঠ শিল্পী পংকজ দাস। সাউন্ড সিস্টেমে ছিলেন জাহিদ হাসান পিন্টু। গ্রন্থ উৎসবে বিদ্যাপ্রকাশের ষ্টল ছাড়াও প্রবাসী লেখকদের ষ্টল ছিল এবং অশানুরূপ বই বিক্রি হয়েছে। রাত ১০:৩০ মিনিটে সমাপনি বক্তব্য ও ফটো সেসনের মধ্যে দিয়ে প্রাণের মেলা গ্রন্থ উৎসবের সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

Leave a Reply


*